You are currently viewing রমজানে ত্বকের যত্ন

রমজানে ত্বকের যত্ন

আপনার ত্বককে সুস্থ রাখা রমজানে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার মতোই গুরুত্বপূর্ণ। নিন্মলিখিত টিপস গুলো আপনাকে পবিত্র মাসে আপনার ত্বককে ডিটক্স করতে সাহায্য করবে।

১. হাইড্রেশন

পর্যাপ্ত পানি পান আপনার ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। ইফতার ও সেহেরীর মধ্যে অন্তত আট গ্লাস পান করুন। কার্বনেটেড বা চিনিযুক্ত পানীয় যেমন সোডা এবং জুস, সেইসাথে ক্যাফেইন পান করা এড়িয়ে চলুন কারণ এটি ডিহাইড্রেট করে। আপনি যদি পানি পছন্দ না করেন তাহলে ফলের জুস খেতে পারেন। এটি আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, টক্সিন বের করে দেয়, আপনাকে হাইড্রেটেড রাখে। লেবু, শসা, পুদিনা, কমলা, আদা, স্ট্রবেরি, ব্লুবেরি, লেবু, আনারস, তরমুজ ইত্যাদি পানির সাথে মিশিয়ে অথবা জুস বানিয়ে খেতে পারেন যা শরীরের জন্য খুবই উপকারী।

2. মুখ বেশি ধুবেন না

রমজানের সময়, রোজা রাখার কারণে আপনার ত্বক পানিশূন্য হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অতিরিক্ত মুখ ধোয়ার ফলে এটি আরও খারাপ হতে পারে। আপনি যদি আপনার ত্বককে ঠান্ডা করতে চান তবে পরিবর্তে একটি ফিক্স স্প্রে ব্যবহার করুন। অতিরিক্ত শীতলতার জন্য এটি ফ্রিজে সংরক্ষণ করুন; এটি ত্বকের ফোলাভাব দূর করে।

3. সানব্লক

গ্রীষ্মে রমজানের সময়, আপনার ত্বককে শক্তিশালী সূর্যের রশ্মি থেকে রক্ষা করা অপরিহার্য। দিনের বেলায় সান ব্লক প্রয়োগ করুন যা কমপক্ষে SPF 30, এবং আপনি যদি তিন ঘন্টার বেশি বাইরে থাকেন তবে পুনরায় ব্যবহার করুন। এই সানব্লক পোরস বন্ধ না রেখে সম্পূর্ণ সুরক্ষা প্রদান করে।

4. ভালো খাদ্যাভাস

রোজা রাখার সময়ও যদি আপনি উজ্জ্বল, স্বাস্থ্যকর ত্বক চান, তাহলে ইফতার এবং সেহেরীর সময় আপনার খাবারে  অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের পরিমাণ বাড়ান। ফাইবার এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবার খান, যেমন বেরি, বাদাম, ডার্ক চকোলেট এবং ডালিম। পুরো দিন রোজা পালন করার পর আপনার পছন্দমতো এক মুঠো  বেরি আপনার প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং মিনারেলস এর ঘাটতি পূরণ করতে সাহায্য করবে।

5. ত্বকের সুরক্ষা

সপ্তাহে একবার বা দুইবার ফেসমাস্ক ব্যবহার করুন। এছাড়াও, নিয়মিত এক্সফোলিয়েট করুন; আপনার ত্বকের ধরণের উপর নির্ভর করে, সপ্তাহে দুবার পর্যন্ত আপনার মুখ এক্সফোলিয়েট করতে পারেন। এটি আটকে থাকা পোরসগুলি পরিষ্কার করতে সাহায্য করে এবং আপনার ত্বক মসৃণ এবং আরও উজ্জ্বল দেখায়।নিয়মিত এক্সফোলিয়েট করা আপনার মুখে রক্ত ​​সঞ্চালনকে বৃদ্ধি করে। এক্সফোলিয়েট করার পরে ঠান্ডা জল দিয়ে আপনার মুখ ধুয়ে ফেললে পোরসগুলি বন্ধ করতে সহায়তা করে।

6. ময়শ্চারাইজিং

আপনার প্রতিদিনের স্কিনকেয়ার রুটিনের পরে ত্বককে ময়শ্চারাইজ করা গুরুত্বপূর্ণ। একটি হাইড্রেটিং ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন যা দিনের বেলা পানির অভাব পূরণ করে, বিশেষ করে যাদের শুষ্ক ত্বক তাদের জন্য এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনার যদি তৈলাক্ত ত্বক থাকে তবে জেল-ভিত্তিক ময়েশ্চারাইজারগুলি ব্যবহার করুন যা হাইড্রেশনে বেশি।

7. সাপ্লিমেন্টস

এই সমস্ত স্টেপসগুলি অনুসরণ করার পরে, যদি আপনার ত্বকে এখনও পুষ্টি বা নির্দিষ্ট ভিটামিনের অভাব বলে মনে হয়, তাহলে ত্বকের সুস্থতা বাড়ায় এমন ভিটামিন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এর সাপ্লিমেন্ট ব্যবহার করতে পারেন। স্বাস্থ্যকর ত্বকের জন্য ডাক্তার এর রেকমন্ডেশন অনুযায়ী ভিটামিন সি, ই এবং এ, সেইসাথে সেলেনিয়াম এবং জিঙ্ক রয়েছে এমন সাপ্লিমেন্ট ব্যবহার করতে পারেন। ইফতার এবং সেহেরীর সময় প্রতিটি সাপ্লিমেন্টের প্রস্তাবিত ডোজ নিন।

Leave a Reply